সেই শাহীনের দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটায় ছিনতাইকারীদের হামলায় গুরুতর আহত কিশোর শাহীনের চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল শনিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে গিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রীর উপ প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন। সেখানেই চিকিৎসা নিছেন শাহীন। তার মাথায় অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। আগামী ৭২ ঘণ্টা তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হবে বলে জানা গেছে।

আশরাফুল আলম খোকন জানান, ব্যাটারিচালিত ভ্যান চালিয়ে সংসার চালানো কিশোরটির দায়দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও এ বিষয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি।

ফেসবুকে আশরাফুল আলম লিখেছেন, সমালোচনা করে, উহ-আহ দুঃখ প্রকাশ করে আপনারা তখন হয়তো ঘুমিয়ে আছেন। টিভিতে সংবাদ দেখেছেন, টকশো দেখেছেন কিংবা হিন্দি সিরিয়াল দেখে ক্লান্ত আপনি হয়তো ভালো মন্দ খেয়ে শান্তির ঘুম দিয়েছেন। সারাদিনের খাটাখাটুনি শেষে শাহীনের মাও হাসপাতালের বারান্দায় গা এলিয়ে দিয়েছে। রাত আড়াইটায় যখন ঢাকা মেডিকেল কলেজে গেলাম তখন জেগে আছে অগোছালো জামা কাপড় পড়া কিছু তরুণ। এরা সবাই ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মী। ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জয়দেব নন্দী, দেবাশীষ আইচ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু হলের জিএস মেহেদী হাসান শান্তসহ ২০ জন।

ছাত্রলীগকে যারা কথায় কথায় গালিগালাজ করে জাতে উঠার চেষ্টা করেন তারা একটু জেনে রাখেন, এই শাহীনকে যশোর থেকে অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করে ঢাকায় নিয়ে এসেছেন ছাত্রলীগেরই কর্মীরাই। কোনো জাতি উদ্ধারকারী সমালোচক এগিয়ে আসেনি। শাহীন কিন্তু ছাত্রলীগের কারো আত্মীয়ও নয়। ঢাকা মেডিকেলে আনার পর শাহীনের জন্য এবি পজেটিভ রক্ত জোগাড় করা করেছে এই জয়দেব নন্দীরাই। রাতে যখন সোয়া ১২টার সময় জয়দেব নন্দী আমাকে ফোন করে জানায়, তার অপারেশন করতে হবে এবং এরপর আইসিউ লাগবে। সাথে সাথেই আমি, প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল অফিসার এস এম খুরশিদ আলম ও আওয়ামী লীগ সুভাস স্নিগ্ধ রায় মেডিকেল কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে অপারেশন ও আইসিউর ব্যবস্থা করি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী তার বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়াও তাদের সঙ্গে সবসময় যোগাযোগ রাখছিলেন।

অপারেশন শেষে রাত তিনটা থেকে শাহীনকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। ডাক্তার বলেছেন, ৭২ ঘণ্টা না গেলে কিছু বলা যাবে না। অপারেশন চলার সময় যখন শাহীনের মা ও চাচার সাথে কথা বলি, ফেল ফেল চোখে তাকিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে তারা শুধু একটি কথাই বলেছেন, আমরা আর নিজেদেরকে অসহায় মনে করছি না। আমার ছেলের জন্য দোয়া করবেন। আর্থিক সহযোগিতাসহ সব রকমের সাপোর্টই দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার ছিনতাইকারীরা কিশোর ভ্যানচালক শাহীনকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে ও কুপিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে। তার একমাত্র সম্বল ভ্যানটিকে নিয়ে যায় তারা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে দেশজুড়ে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। শুরুতে জানা গিয়েছিল অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে শাহীনের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু পরবর্তীতে জানা যায়, কঠোর সংগ্রামী এই কিশোরকে মৃত্যুও হারিয়ে দিতে পারেনি।