সিরাজগঞ্জে ট্রেন লাইনচ্যুত, আগুন ধরে যায় তিনটি বগিতে

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ উত্তরাঞ্চলীয় সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় দুপুরে একটি আন্তনগর ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে। রংপুর এক্সপ্রেস নামে ট্রেনটির ৯টি বগি লাইনচ্যুত হয়। আগুন ধরে যায় তিনটিতে। উল্লাপাড়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্ম্মদ আরিফুজ্জামান বলেন, আগুন ধরা বগিগুলো থেকে যাত্রীদের প্রায় সবাই জানালার কাঁচ ভেঙ্গে বেরিয়ে আসায় বড় ধরণের হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। তবে এ ঘটনায় ৫-৭ জন আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত দমকল কর্মীরা আগুন নেভানোর কাজ করছে। দুর্ঘটনার কারণে উত্তরাঞ্চলের সাথে ঢাকার রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। সিরাজগঞ্জ পাবনা মহাসড়কও বন্ধ হয়ে যায়।

তবে ট্রেনের দুটো বগি সরিয়ে আপাতত সড়ক যোগাযোগ পুনঃস্থাপন করা সম্ভব হয়েছে বলে জানাচ্ছেন মি.আরিফুজ্জামান। তিনি আরো জানান, সিগন্যাল ভুল হবার কারণে এই দুর্ঘটনাটি ঘটতে পারে বলে তার ধারণা। ট্রেনটি ছিল একটি মিটারগেজ ট্রেন। কিন্তু ভুল সিগন্যালের কারণে এটি ব্রডগেজ লাইনে উঠে গেলে এই লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটে, বলেন মি.আরিফুজ্জামান। উল্লাপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তফা হোসেন জানান, স্টেশনের কাছে ঘটনাটি ঘটে। ট্রেনটির ইঞ্জিনও অগ্নিকাণ্ডের কবলে পড়ে। তবে পরিস্থিতি আপাতত নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। ওই ট্রেনে ভ্রমণ করছিলেন হেলাল হেদায়েতুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি। তিনি দুর্ঘটনা কবলিত ট্রেনটিরএকটি ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করেন।

ভিডিওতে দেখা যায়, হেলে পড়া একটি ট্রেন থেকে কালো ধোঁয়া উড়ছে। তিনি বলেন, “হঠাৎই আমার অনুভব করি যে ট্রেনটি বামদিকে হেলতে শুরু করেছে। আমার দ্রুত ট্রেন থেকে নেমে যাই।” গত মঙ্গলবারই ঢাকা চট্টগ্রাম রুটে দুটি ট্রেনের সংঘর্ষে ১৬ জনের প্রানহানী ঘটে। আহত হয় বহু। এই ঘটনার দুদিন না যেতেই আবারো একটি বড় দুর্ঘটনা ঘটলো, উল্লাপাড়ার ইউএনও-র বর্ণনায় যে দুর্ঘটনায় অনেক প্রানহানী হতে পারতো কিন্তু তার ভাষায় ‘ভাগ্যক্রমে’ তা ঘটেনি।যদিও ট্রেনকে বাংলাদেশের অন্যতম নিরাপদ যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে বিবেচনা করা হয়।