সরকারের সঙ্গে গোপন যোগাযোগ বিএনপি নেতাদের

দৈনিক এই আমার দেশ দৈনিক এই আমার দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক ; মামলা থেকে বাঁচতে বিএনপি নেতারা সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন। সরকারের বিভিন্ন ব্যাক্তির কাছে ধর্ণা দিচ্ছেন। কেউ কেউ এমন কথাও বলছেন, তারা আর রাজনীতি করবেন না, তবুও মামলাগুলো থেকে যেন পরিত্রান পান। সিনিয়র নেতারা এখন নতুন নির্বাচন নিয়ে আন্দোলন নয়, নিজেদের বাঁচাতেই ব্যস্ত।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। সরকারের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির সঙ্গে তার যোগাযোগ চলছে। দুদকের মামলায় আষ্টে পৃষ্ঠে জড়িয়ে আছেন। মামলা নিয়েই তিনি তদ্বিরে ব্যস্ত। বিএনপির আন্দোলন, বেগম জিয়ার মুক্তি এসব কোন কিছুই তার মাথায় নেই। সরকারের একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তিকে বলেছেন,‘ আর রাজনীতি করবো না, তবুও এ যাত্রায় বাঁচান।’ নির্বাচনের পর থেকেই দলীয় কর্মকান্ডে অনুপস্থিত মির্জা আব্বাস। কিন্তু দুর্ভাগ্য হলো, সরকারের নানা মহলে যোগাযোগ করেও এখন পর্যন্ত আশার বানী শুনতে পাননি বিএনপির এই নেতা।

মির্জা আব্বাসের মতই নিজেকে বাঁচাতে দৌড়ঝাঁপ করছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন। তিনিও সরকারের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ একাধিক ব্যাক্তির সঙ্গে বৈঠক করেছেন। প্রয়োজনে দল ভেঙে নতুন বিএনপি করারও প্রস্তাব দিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র এই নেতা। কিন্তু এখন পর্যন্ত তিনিও কোনো সবুজ সংকেত পাননি। সরকারকে খুশী করতেই রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে নিজেকে গুটিয়ে রেখেছেন।

ব্যরিস্টার মওদুদ আহমেদের সঙ্গে সরকারের বিভিন্ন মহলের পুরনো যোগাযোগ। তাঁর ‘ভায়রা’ প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাও বটে। বাড়ি সংক্রান্ত জটিলতার সময় থেকেই তাঁর সঙ্গে সরকারের যোগাযোগ। নির্বাচনের আগে সংলাপে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তাঁর বাড়ি নিয়ে তদ্বিরও করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী হাসতে হাসতে বলেছিলেন, ‘হাসনার (ব্যারিস্টার মওদুদের স্ত্রী) বাড়ি হলে বিবেচনা করতাম।‘ কিন্তু সরকারের বিভিন্ন মহলে যোগাযোগ করলেও, ব্যরিস্টার মওদুদকে বিশ্বাস করেন না কেউই। যার ফলে সরকারের কাছে ধর্ণা দিয়েও কোন ফল পাননা মওদুদ।

শুধু যারা বাইরে আছেন তারাই নন, যারা জেলে আছেন তাঁদের আত্মীয় স্বজনও মুক্তির জন্য সরকারের বিভিন্ন মহলে দেন দরবার করছেন। হাবিব উন নবী খান সোহেলের স্ত্রী সরকারের একাধিক মন্ত্রির সঙ্গে সোহেলের জামিনের জন্য তদ্বির করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। শিমুল বিশ্বাসের ভাইও সরকারের কাছে ভাইয়ের জামিনের জন্য ধর্ণা দিচ্ছেন।

বিএনপির একাধিক নেতা বলছেন, বেগম জিয়ার মুক্তির জন্যই যে দল কিছু করতে পারে না, তারা অন্য নেতা-কর্মীদের জন্য কি করবে। বিএনপি না পারছে মামলা লড়তে, না পারছে আন্দোলন করতে, তাই যে যার মতো সরকারের সঙ্গে সমঝোতা করে চলতে চায়। কিন্তু এতে রাজনীতির ভবিষ্যৎ কি হবে? এ প্রশ্নের উত্তর নেই কারও।