বিদ্যুৎসংযোগ নেই, তারপরও ৬ মাসের বকেয়া পরিশোধের নোটিস

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিদ্যুতের গ্রাহক না হলেও এক দিনমজুরের নামে ছয় মাসের বকেয়া বিল দেখিয়ে তা পরিশোধ করার নোটিস দিয়েছে কুড়িগ্রাম-লালমনিরহাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ভূরুঙ্গামারী জোনাল অফিস।

শুধু তাই নয়, নোটিস পাওয়ার পর অতিসত্বর বিল পরিশোধ না করলে ওই দিনমজুরের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পল্লী বিদ্যুতের এমন ভুতুড়ে কাণ্ডে বিপাকে পড়েছেন ভুক্তভোগী দিনমজুরসহ নোটিসপ্রাপ্ত একাধিক ব্যক্তি।

সূত্র জানায়, কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার পাইকেরছড়া ইউনিয়নের পাইকেরছড়া গ্রামের সিরাজুল হকের ছেলে হবির আলী। পেশায় তিনি দিনমজুর। বাড়িতে তার নামে কোনো বিদ্যুৎসংযোগ বা মিটার না থাকলেও হবির আলীর নামে ছয় মাসের বকেয়া বাবদ ১ হাজার ৯৫১ টাকা দেখিয়ে তা পরিশোধের নোটিস দিয়েছে পল্লী বিদ্যুৎ ভূরুঙ্গামারী জোনাল অফিস।

একই এলাকার খোকন মিয়ার নামে কোনো বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকলেও গ্রাহকের সংযোগ হিসাবে ৮ হাজার ৮৪৬ টাকা বকেয়া দেখানো হয়েছে। ভুক্তভোগী খোকন বলেন, ‘এত টাকা বিল দেখে আমার মাথা ঘুরে গেছে। আমি গরিব মানুষ। বিদ্যুৎ অফিসে গিয়েছিলাম। কোনো সমাধান হয়নি।’

গ্রাহকদের দেওয়া নোটিসের কপিতে বলা হয়েছে, ‘রেকর্ডপত্র অনুযায়ী, ২০২১ সালের ৯ অক্টোবর বকেয়ার কারণে সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এই অবস্থায় অত্র নোটিস প্রাপ্তির পর অতিসত্বর বকেয়া পরিশোধ ও পুনঃসংযোগ গ্রহণ করার জন্য বলা হইল। অন্যথায় বকেয়া আদায়ের জন্য বিদ্যুৎ আইন ও পিডিআর অ্যাক্ট অনুযায়ী, আপনার বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হইবে।’

এ ছাড়া আমিনুল ইসলাম, ফয়েজউদ্দিন, শিপন মিয়া, আমিনুর রহমান, রজব আলী ও আজাদুল হকের নামে বকেয়া পরিশোধের নোটিস দেওয়া হয়েছে। অথচ তাদের নামে কোনো বকেয়া নেই বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ভূরুঙ্গামারী থানার ওসিকে মামলা করার জন্য এই নোটিসের অনুলিপি দেওয়া হয়েছে।