বিএনপি সুস্থ খালেদা জিয়াকে অসুস্থ বানিয়ে ফেলছে: তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে সুস্থ দাবি করে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘ওনারা একজন সুস্থ মানুষকে অসুস্থ বানিয়ে ফেলছে। ওনার (খালেদা জিয়া) যে পায়ে ব্যথা, সেটি নিয়ে তিনি দুবার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। পায়ের এই সমস্যা নিয়ে তিনি বিরোধীদলীয় নেত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। এটি তো তার কোনো নতুন শারীরিক সমস্যা নয়, এটি পুরনো সমস্যা। তারা বড় করে দেখিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করতে চাইছেন।

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির ৫ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে বিএনপি রাজনীতি করছে মন্তব্য করে হাছান মাহমুদ বলেন, খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে বিএনপি রাজনীতি করছে।আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গুরুতর অসুস্থ হয়েও বিএসএমএমইউতে চিকিৎসা নিতে পারলে খালেদা জিয়া কেন পারবেন না- এমন প্রশ্নও তোলেন তিনি।

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি নেতারা কদিন পর পর বলেন- তাদের নেত্রীর চিকিৎসা দরকার। আবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসা দিলে তাতে হবে না। আমাদের দলের সাধারণ সম্পাদক হার্ট অ্যাটাকের পর তাকে বিএসএমএমইউতে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। বিএসএমএমইউর চিকিৎসার সুনাম করেছেন উপমহাদেশের বিখ্যাত চিকিৎসক দেবী শেঠি। সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথের ডাক্তাররাও এই হাসপাতালের চিকিৎসার সুনাম করেছেন। আর বিএনপি নেতারা কিনা বলেন, এখানে খালেদা জিয়ার সঠিক চিকিৎসা দেয়া সম্ভব নয়। আসলে ওনারা প্রকৃতপক্ষে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে রাজনীতি করছেন

বাংলাদেশের আলেম সমাজের মাথায় কাঁঠাল ভেঙে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় গেছে মন্তব্য করে হাছান মাহমুদ বলেন, আলেম সমাজের মাথায় কাঁঠাল ভেঙেই বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় গেছে। তবে আলেম সমাজের উপকারে কোনো কাজ তারা করেনি।

ইসলামকে যারা রাজনৈতিক স্বার্থে ব্যবহার করেন, তারা ইসলামের খেদমতগার নন, এমন মন্তব্য করে হাছান মাহমদু বলেন, বিএনপি-জামায়াত ইসলামের কথা বলে ক্ষমতায় গেলেও কওমি মাদ্রাসার স্বীকৃতি দেয়নি। শেখ হাসিনা, আওয়ামী লীগ সরকার কওমি মাদ্রাসার স্বীকৃতি দিয়েছেন।

মাওলানা ইসমাইল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে দলটির বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।