বাংলা স্কুল মনফালকনে কর্তৃক আয়োজিত বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

মোঃজিয়াউর রহমান খান সোহেল
— মনফালকনে ইতালি।

আজ এক আনন্দঘন উৎসব মুখর পরিবেশে বাংলা স্কুল মনফালকনে ইতালিতে ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষের ফলাফল ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। নুরুল আমিন খন্দকারের সভাপতিত্বে ও মোঃ জিয়াউর রহমান খান সোহেল এর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মোঃমজিবুর রহমান সভাপতি বাংলাদেশ সমিতি ভেনিস ও চেয়ারম্যান নিউ ওয়াল্ড সার্ভিস এস,আর,এল।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফরিদুল ইসলাম আনিস, হামীম হোসাইন, রেজাউল হক রাজু, জাভেদ ছাড়াও ভেনিস থেকে আগত মোস্তাক আহমেদ বৃহত্তর ঢাকা এসোসিয়েশন ভেনিস ইতালি সাধারন সম্পাদক,তোফাজ্জল হোসেন,জাওয়ার মোড়ল,রাজন হাজারি, মাহবুব প্রমুখ।

কুরআন থেকে তেলাওয়াত দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়।কোরআন তেলাওয়াত করেন স্কুলের ৩য় শ্রেণীর ছাত্র আমিন মেহরাব।সব বিষয়ে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে প্রথম হয়েছে শিশু শ্রেণীর রিফাত মিয়া।শিশু,১ম,২য়,৩য় ও চতুর্থ শ্রেণী মিলিয়ে জিপিয়ে ৫ পেয়েছে মোট ৪৩ জন ছাত্র ছাত্রী ও অন্যান্য গ্রেডে আরো ২০ জন পাশ করেছে।

স্কুলের টিচার্স কো-অর্ডিনেটর মুর্শিদা বেগম বলেন বাচ্চাদের ভালো ফলাফলে শুধুমাত্র স্কুল বা শিক্ষকদের কৃতিত্ব নেই এখানে অভিবাবকদের ত্যাগ ও চেষ্টা ছিল অপরিসীম।প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন প্রবাসে বাংলাস্কুল প্রতিষ্ঠা করার মাধ্যমে এদেশে জন্ম নেয়া ও বেড়ে উঠা কোমল সোনামনিদের বাংলা বলতে লিখতে ও পড়তে পারায় যে ভূমিকা রেখেছে তার ভূয়সি প্রসংশা করেন এবং বাংলা সংস্কৃতি যেন হারিয়ে না যায় সেজন্য অভিবাবকদের প্রতি বিশেষ ভাবে শতর্ক করেন মাতৃভাষা বাংলা শিক্ষা দেয়ার জন্য।স্কুলের উত্তোরত্তর সাফল্য কামনা করে ভবিষ্যতে যে কোন সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

সাধারন সম্পাদক তার বক্তবে কনসুলেট জেনারেল মিলান এর নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন স্কুলে বই দিয়ে সহযোগিতা করার জন্য এবং আশা প্রকাশ করেন ভবিষ্যতে এ ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রাখবেন।অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ওয়েল ফেয়ার এন্ড কালচারাল এসোসিয়েশান এর সহ সভাপতি ফরিদ খান কোষাধ্যক্ষ আরিফুজ্জামান, আবুুল হোসাইন পাপ্পু,উপদেষ্টা হুমায়ুন মিয়া,সিরাজুল হক ভূঞঁা টেনিস শিক্ষিকা মুর্শিদা বেগম, আফরিন খানম তিতাস, মাধবি সরকার সিমা।

তাছাড়াও স্কুলের ছাত্র ছাত্রী অভিবাবক বৃন্দ কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।