নেপাল গেলেন রাষ্ট্রপতি

নিজস্ব প্রতিবেদক : নেপালের প্রেসিডেন্ট বিদ্যা দেবী ভাণ্ডারীর আমন্ত্রণে চার দিনের রাষ্ট্র্রীয় সফরে ঢাকা ছেড়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

মঙ্গলবার বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে রাষ্ট্রপতি শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে রওনা হন।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদরাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদমুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী বিমানবন্দরে রাষ্ট্রপতিকে বিদায় জানান।
তিন বাহিনীর প্রধানসহ বেসামরিক-সামরিক কর্মকর্তারাও এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিমানবন্দরে।

বঙ্গভবন থেকে জানানো হয়েছে, নেপালের প্রেসিডেন্ট বিদ্যা দেবী ভাণ্ডারী কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রাষ্ট্রপতি হামিদকে স্বাগত জানাবেন।

এই সফরে দুই রাষ্ট্রপ্রধানের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকও হবে। এছাড়া বিদ্যা দেবী ভাণ্ডারীর দেওয়া নৈশভোজে অংশ নেবেন আবদুল হামিদ।

নেপালের ইতিহাসে প্রথম নারী হিসেবে ২০১৫ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন বিদ্যা দেবী ভাণ্ডারী। ক্ষমতাসীন দল কমিউনিস্ট পার্টি অব নেপাল (ইউনিফাইড মার্কসিস্ট লেনিনিস্ট) বা সিপিএন-ইউএমএলের ভাইস চেয়ারপারসন ছিলেন তিনি।

সফরকালে আবদুল হামিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি, ভাইস প্রেসিডেন্ট নন্দ বাহাদুর পুন, পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষ ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির চেয়ারপার্সন গনেশ প্রসাদ তিমিলসিনা, পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রদীপ কুমার গিওয়ালি, নেপালের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির কো-চেয়ারম্যান পুষ্প কমল দহল (প্রচণ্ড), বিরোধী দল নেপালি কংগ্রেস পার্টির প্রেসিডেন্ট ও বিরোধী দলীয় নেতা শের বাহাদুর দেউবা।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এই সফরে পোখারা এবং কাঠমান্ডুর বিভিন্ন ঐতিহাসিক নিদর্শন ঘুরে দেখবেন। সফর শেষে ১৫ নভেম্বর তার দেশে ফেরার কথা রয়েছে।