ডাকসু নির্বাচনে বিধিনিষেধ

নিজস্ব প্রতিবেদক : বহু আকাঙ্ক্ষার শেষে রোববার হতে যাচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন। এরইমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। আগামীকাল সকাল ৮টা থেকে ২টা পর্যন্ত চলবে ডাকসু ও হল সংসদের ভোটগ্রহণ।

নির্বাচনের দিন সকাল থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত ক্যাম্পাসের সব ফটক সর্বসাধারণের জন্য বন্ধ থাকবে। কেবল ভোটারসহ ক্যাম্পাস সংশ্লিষ্টরা পরিচয়পত্র দেখিয়ে প্রবেশ করতে পারবেন। নির্বাচনের দিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ক্লাস ও পরীক্ষাও বন্ধ থাকবে।

প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে আর্চওয়ে ও মেটাল ডিটেক্টর স্থাপন করা হবে। শিক্ষার্থীদের আইডি কার্ড দেখিয়ে নিজ নিজ ভোটকেন্দ্রে প্রবেশ করতে হবে। দুপুর ২টার মধ্যে যারা কেন্দ্রে প্রবেশ করবে তাদের সবারই ভোটগ্রহণ করা হবে। ভোটার নিজের আইডি কার্ড দেখিয়ে ব্যালট পেপার সংগ্রহ করে প্রার্থীর নামের ডানপাশে নির্ধারিত ঘরে ক্রস চিহ্ন দিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবে। দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ বুথ ও প্রয়োজনীয় সহযোগিতার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে।

নির্বাচনের দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩টি প্রবেশপথ (নীলক্ষেত, শাহবাগ ও হাইকোর্ট) বিশেষ নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় থাকবে। এই ৩টি প্রবেশপথ দিয়ে শুধুমাত্র ভোটার ও নির্বাচন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা নিজ নিজ পরিচয়পত্র দেখিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে প্রবেশ ও বের হবে। ভোট কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট পাসযুক্ত যানবাহন বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্ধারিত এই ৩টি গেট দিয়ে চলাচল করবে। শিক্ষার্থীদের অবাধ চলাচল ও শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্ধারিত ও স্টিকারযুক্ত যানবাহন ছাড়া অন্য কোনো যানবাহন ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে পারবে না।

নির্বাচনের দিন গণমাধ্যমকর্মীরা অনুমতি ছাড়া কোনো ভোটকেন্দ্রে যেতে পারবেন না। নির্বাচনের দিন তারা চিফ রিটার্নিং অফিসার কর্তৃক ইস্যুকৃত পরিচয়পত্র দেখিয়ে সংশ্লিষ্ট হলের রিটার্নিং অফিসারের অনুমতি নিয়ে ভোটকেন্দ্রের গেস্টরুম/নির্ধারিত স্থান পর্যন্ত প্রবেশ করতে পারবেন।

ভোটের দিন ভোটকেন্দ্র থেকে সরাসরি কিছু সম্প্রচার করা যাবে না। ভোটগ্রহণ কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হতে পারে এমন কোনো কাজও করা যাবে না। ভোটকেন্দ্রে মোবাইল ফোনসহ সব ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার নিষিদ্ধ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সদস্যরা এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার নির্ধারিত সংখ্যক প্রতিনিধি (পাস পাওয়া সাপেক্ষে) ভোটকেন্দ্রের নির্ধারিত স্থানে উপস্থিত থাকতে পারবেন। আবেদন সাপেক্ষে একটি টেলিভিশন চ্যানেলের জন্য সর্বোচ্চ ৪টি ক্যামেরা ইউনিটকে এবং প্রতিটি প্রিন্ট মিডিয়ার সর্বাধিক ২ জন সাংবাদিককে পরিচয়পত্র প্রদান করা হচ্ছে।