“ঈদের আগেই ঈদ আনন্দ” প্রধানমন্ত্রীর- উপহার নতুন ঘর পাচ্ছে ১৮২ পরিবার

তৌহিদুল ইসলাম সরকার, ময়মনসিংহ প্রতিনিধি:

ময়মনসিংহের-নান্দাইল উপজেলার তিনটি ইউনিয়নে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহারের নতুন ঘর পাচ্ছে ১৮২টি ভূমি ও গৃহহীন পরিবার। আগামী মঙ্গলবার (১১ জুন) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এসব পরিবারের মধ্যে উপহারের ঘর তুলে দিবেন। এদিকে জমিসহ উপহারের পাকা ঘর পাওয়ার আশায় নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন উপজেলার তালিকাভুক্ত হতদরিদ্ররা। তবে, জমিসহ নতুন ঘর পাওয়ার খবরে উপজেলার গৃহহীন এসব পরিবারগুলোতে ঈদের আগেই ‘ঈদ আনন্দ’ বিরাজ করছে।

উপজেলা প্রশাসন জানিয়েছে, আশ্রয়ন প্রকল্পের পঞ্চম পর্যায়ের দ্বিতীয় ধাপে ৫১টি জেলার ১৫৮টি উপজেলার উপকারভোগীদের মাঝে পুরাতন ব্যারাকের পরিবর্তে একক নতুন ঘর ও দুই শতক জমি হস্তান্তর করা হবে। এর অংশ হিসেবে নান্দাইল উপজেলার শেরপুর ইউনিয়নের উলুরচর আশ্রয়ন প্রকল্প, মুসল্লী ইউনিয়নের বারোপাড়া আশ্রয়ন প্রকল্প এবং খারুয়া ইউনিয়নের চর- মহেশপুর আশ্রয়ন প্রকল্পের পুরাতন ব্যারাকগুলো অপসারণ করে ১৮২টি একক ঘর নির্মাণ করা হয়েছে, যেগুলো ১১ জুন প্রদান করা হবে।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে উপজেলার শেরপুর ইউনিয়নের ৫৪টি মুসল্লী ইউনিয়নে ১৯টি এবং খারুয়া ইউনিয়নে ১০৯টি ঘর প্রস্তুত করা হয়েছে। তবে এসব জমি ও ঘর প্রাপ্তদের মধ্যে পূর্ব থেকেই সরকারি উপকারভোগী আছেন ১৫৩ জন, যাদেরকে পূর্বেই আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় টিনের ঘর দেওয়া হয়েছিলো। তবে নতুন করে এই তালিকায় আরও ২৯ জন যুক্ত করে সর্বমোট ১৮২ জনকে নতুন ঘর প্রদান করা হচ্ছে।

চর-মহেষকুড়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের নতুন ঘর পাওয়ার খবরে খুশি মোছা. ফজিলা খাতুন জানান, প্রধানমন্ত্রীর উপহারের একটি সুন্দর পাকা বাড়ি পাচ্ছি। সেখানে আমরা সুন্দরভাবে থাকতে পারবো। এজন্য শেখ হাসিনা ও উপজেলা প্রশাসনের প্রতি অনেক কৃতজ্ঞতা।

এসব প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী অফিসার অরুণ কৃষ্ণ পাল বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগে আশ্রয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে এই পর্যন্ত ৫ লাখ ৭ হাজার ২৪০টি পরিবারকে ২ শতক জমিসহ ঘর প্রদান করা হয়েছে। আগামী ১১ জুন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে নান্দাইলের ১৮২টি ভূমিহীন-গৃহহীনদের মাঝে ২ শতক জমিসহ নতুন ঘর প্রদান করা হবে। নতুন ঘর পাওয়ার খবরে গৃহহীন পরিবারগুলোতে আনন্দের বন্যা বইছে।

তিনি বলেন,ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জমিসহ ঘর প্রদান কার্যক্রমের অংশ হতে পেরে আমি আনন্দিত। আগে এখানে টিনশেড ব্যারাক ছিলো, এতে ১০টি পরিবার একসাথে থাকতো। বর্তমানে সবার জন্য একক ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। এখানে বসবাসরত মানুষদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তারা যেন স্বনির্ভর হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারেন। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।